টপ ৫: ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

পৃথিবীর শুরু থেকেই প্রাকৃতিক দুর্যোগ পৃথিবীর জন্য নিয়মিত ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রাণ হারিয়েছে অগণিত মানুষ ও অন্যান্য প্রাণীরা, প্রাণহানি ছাড়াও হয়েছে অনেক ক্ষয়ক্ষতি। তবে এসব দুর্যোগ গুলোর মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন প্রাকৃতিক দুর্যোগগুলোর কথা লিপিবদ্ধ না থাকায় তা ইতিহাসের পাতা থেকে মুছে গেছে। আর তাই যেসব প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রমাণ এবং ক্ষয়ক্ষতি লিপিবদ্ধ আছে, সেসব প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকেই ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ ৫ প্রাকৃতিক দুর্যোগ নিয়ে আজকের এই পর্ব। এখানে কোনো দুর্যোগ কতটা ভয়াবহ তার জন্য ঐ দুর্যোগে কতজন মানুষ মারা গেছেন তা ধরা হয়েছে।

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

ভোলা সাইক্লোন

ভোলা সাইক্লোন
ভোলা সাইক্লোন

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ ৫ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এর ৫ম স্থানে আছে ১৯৭০ সালের ভোলা সাইক্লোন। মারাত্মক এই সাইক্লোন আঘাত হানে বাংলাদেশের ভোলায় অর্থাৎ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে। এই ভোলা সাইক্লোন পৃথিবীর ইতিহাসেই সবচেয়ে ভয়ংকর ঘূর্ণিঝড় হিসাবে পরিচিত।

ঘূর্ণিঝড়টি বঙ্গোপসাগরে ৮ই নভেম্বর সৃষ্ট হয় এবং ক্রমশ শক্তিশালী হতে হতে উত্তর দিকে অগ্রসর হতে থাকে। ১১ই নভেম্বর এর গতিবেগ সর্বোচ্চ ঘণ্টায় ১৮৫ কিমি (১১৫ মাইল) এ পৌঁছায় এবং সে রাতেই বাংলাদেশ (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) এবং পশ্চিম ভারত উপকূলে আঘাত করে। ঘূর্ণিঝড়ের ফলে সৃষ্ট জলচ্ছাসের কারণে প্লাবিত হয় উপকূলীয় অঞ্চল ও দ্বীপসমূহ। এতে করে সৃষ্টি হয় ভয়ংকর এক বন্যার। যার ফলাফল মানুষকে বহুদিন বহন করতে হয়েছিল। এই ভয়াবহ দুর্যোগে সে সময় আনুমানিক ৫ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল।

তাংসান ভুমিকম্প

তাংসান ভুমিকম্প
তাংসান ভুমিকম্প

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ ৫ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এর পরবর্তী স্থানে আছে তাংসান ভুমিকম্প। মারাত্মক এই ভুমিকম্প আঘাত হানে চীনের তাংসানে, ১৯৭৬ সালে। প্রায় ৬ লাখ ৫৫ হাজার মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ি এই ভূমিকম্প। ১৯৭৬ সালের ২৮ জুলাই রাত ৩:৪২ এ চীনের তাংসান এবং হেবেই অঞ্চলে ৭.৬ মাত্রার এ ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। কয়েক মিনিটের মধ্যে, তাংসানের ৮৫% ভবন ধসে পড়ে বা অকেজো হয়ে পড়েছিল, সব ধরনের সার্ভিস বন্ধ হয়ে গেছিল এবং বেশিরভাগ হাইওয়ে এবং রেলওয়ে ভেঙে পড়েছিল বা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। মারাত্মক এই ভূমিকম্পে প্রথমে আড়াই লাখ মানুষ মারা গেছে ধরা হলেও পরবর্তী সময়ে চীন সরকার পূর্ণাঙ্গ মৃত্যুতালিকা প্রকাশ করলে বিশাল এই মৃতের তালিকা পাওয়া যায়।

সানজি ভুমিকম্প

সানজি ভুমিকম্প
সানজি ভুমিকম্প

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ ৫ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এর ৩য় স্থানে আছে সানজি ভুমিকম্প। মারাত্মক এই ভুমিকম্প আঘাত হানে চীনের সানজিতে, ১৫৫৬ সালের ২৩ জানুয়ারির সকালে। সেদিন চীনের সানজি, হেনান, গানসু, শানডং, হুবেই, হুনান এবং জিয়াংসু সহ বেশ কয়েকটি প্রদেশে আঘাত হানে এই আট মাত্রার ভুমিকম্প। বেইজিং, চেংডু এবং সাংহাই শহরের অনেক ভবনও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। ভয়ংকর এই ভুমিকম্পে প্রায় ৮ লাখ ৩০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিল। যারমধ্যে কিছু কিছু প্রদেশে ৬০% এরও বেশি মানুষ মারা যায়।

হুয়াংহো বা হলুদ নদীর বন্যা

হুয়াংহো বা হলুদ নদীর বন্যা
হুয়াংহো বা হলুদ নদীর বন্যা

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ ৫ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এর ২য় স্থানে আছে হুয়াংহো বা হলুদ নদীর বন্যা। এটি মানব জাতির ইতিহাসে অন্যতম ভয়ংকর বন্যা হিসাবে পরিচিত। মারাত্মক এই বন্যা ১৮৮৭ সালে চীনের হুয়াংহো বা হলুদ নদীতে সংঘটিত হয়। নদীর উঁচু প্রকৃতির কারণে এবং নদীটি আশেপাশের প্রশস্ত সমতল ভূমির উপর দিয়ে বয়ে চলার কারনে নদীটিতে এমনিতেই বন্যার ঝুঁকি বেশি। আর ১৮৮৭ সালের সেপ্টেম্বরে সংঘটিত হওয়া এই ইয়েলো রিভার ফ্লাডের কারনে চীনের ১১টি বড় শহর এবং শত শত গ্রাম প্লাবিত হয়ে যায়। লাখ লাখ মানুষ হয় ঘরছাড়া। বন্যার পানি প্রবেশ করে প্রায় ৫০ হাজার বর্গমাইল এলাকায়। যারফলে আনুমানিক ৯ লাখ থেকে ২০ লাখ মানুষ মারা যায়।

সেন্ট্রাল চায়না বন্যা – ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হল সেন্ট্রাল চায়না বন্যা
ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হল সেন্ট্রাল চায়না বন্যা

ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ হল সেন্ট্রাল চায়না বন্যা। ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়াবহ এই বন্যা সংঘটিত হয় ইয়াংসি এবং হুয়াই নদীতে। এটি ছিল একটি ধারাবাহিক বন্যা যা জুন থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। বন্যা আঘাত হানে উহান, নানকিংসহ আরো অনেক বড় বড় শহরে। ব্যাপক বন্যার ফলে পানিতে ডুবে, রোগে ভুগে এবং অনাহারে আনুমানিক প্রায় ৪ মিলিয়ন বা ৪০ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়। যদিও সরকারী হিসাবে এই সংখ্যা ২৫ লাখ। আবার অনেকের মতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এই বন্যায় মোট ৫১ মিলিয়নের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়।



error: