টপ ৫: বিশ্বের সবচেয়ে ছোট দেশ

পৃথিবীতে ১৯৪ টিরও অধিক দেশ রয়েছে। আর অনেকেই মনে করেন যে এই দেশগুলোর সবগুলোই হয়তো খুব বড় এবং জনসংখ্যাও বেশি। কিন্তু কিছু কিছু দেশ বড় দেশগুলোর তুলনায় একেবারেই ছোট। আর ছোট দেশগুলোর বেশিরভাগের ই অবস্থান ইউরোপ, ক্যারিবিয়ান এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে। ছোট দেশ গুলো এতো ছোটই যে সবচেয়ে ছোট ৫ টি দেশের আয়তনের যোগফল আমাদের ঢাকা শহরের চাইতেও অনেক কম। আমাদের ঢাকা শহরের আয়তন ১৬৭.৭ বর্গ কি.মি. পক্ষান্তরে সবচেয়ে ছোট ৫ টি দেশের আয়তনের যোগফল মাত্র ১১০.৪৪ কি.মি.। তো চলুন দেখে নেই বিশ্বের সবচেয়ে ছোট দেশ গুলোকে:

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট দেশ

সান মেরিনো

সবচেয়ে ছোট দেশের লিস্টে ৫ নম্বরে রয়েছে সান মেরিনো। এই দেশটির আয়তন ৬১ বর্গ কি.মি.। দেশটির চারদিকেই ইতালি। বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীনতম সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে দাবি করা এই দেশটি মাথাপিছু জিডিপি এর ভিত্তিতে অন্যতম ধনী দেশ। ইউরোপের ৩য় ছোট এই দেশটির জনসংখ্যা ৩০ হাজার। আর একারনেই দেশটিতে বেকারত্ব নেই বললেই চলে।

টুভালু

সবচেয়ে ছোট দেশের লিস্টে ৪র্থ স্থানে আছে টুভালু। এটি পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে অবস্থিত একটি দ্বীপরাষ্ট্র। এর আয়তন ২৬ বর্গ কি.মি.। টুভালু পূর্বে এলিস দ্বীপপুঞ্জ নামে পরিচিত ছিলো। এটি ১৯৭৫ সালে গিলবার্ট দ্বীপপুঞ্জ থেকে আলাদা হয় এবং এর তিন বছর পর ১৯৭৮ সালে স্বাধীনতা লাভ করে। টুভালুর জনসংখ্যা ১০ হাজার। দেশটির সড়কপথ ৮ কি.মি. এবং দেশটিতে হাসপাতাল আছে মাত্র ১ টি।

নাউরু

সবচেয়ে ছোট দেশের লিস্টে ৩য় স্থানে আছে নাউরু। এটি প্রশান্ত মহাসাগরীয় মাইক্রোনেশিয়া অঞ্চলের একটি ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্র। এর আয়তন ২১ বর্গ কি.মি.। নাউরুই পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট দ্বীপরাষ্ট্র। নাউরুই একমাত্র দেশ যার কোন রাজধানী নেই। আশির দশকে এই নাউরুতে ছিলো ফসফেট খনির রমরমা ব্যবসা। তবে ফসফেটের প্রাচুর্যতা কমে যাওয়া দেশটিতে বেকারত্ব খুবই বেশি। নাউরুর জনসংখ্যা প্রায় ১৪ হাজার। তবে নাউরুর প্রায় ৯৫% জনসংখ্যাই স্থূলকায়।

মোনাকো

সবচেয়ে ছোট দেশের ২য় স্থানে আছো মোনাকো। এটি ইউরোপ মহাদেশের একটি দেশ। এর আয়তন মাত্র ২.০২ বর্গ কি.মি.। এর জনসংখ্যা প্রায় ৩৭ হাজার। তবে জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কি.মি. ১৮০০০ এর বেশি হওয়ায় মোনাকোই বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। দেশটির তিন দিকে ফ্রান্স এবং একদিকে ভূমধ্যসাগর। পর্যটন শিল্পই দেশটির প্রধান চালিকা শক্তি। এর প্রধান আকর্ষণ ক্যাসিনো বা জুয়াখেলার আখড়াগুলি। সরকারীভাবে রাজধানী না থাকলেও সবচেয়ে বিত্তশালী চতুর্থাংশ মণ্টি কার্লোকে মোনাকোর কেন্দ্র বলা হয়। জুয়াখেলায় অঙ্কের যে তত্ব প্রযোজ্য সেই প্রোবাবিলটি বা সম্ভাবনা তত্বের এক বিখ্যাত পদ্ধতি মণ্টি কার্লো মেথড এর উৎপত্তি এই মন্টি কার্লোকে কেন্দ্র করেই।

ভ্যাটিকান সিটি

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট দেশ হলো ভ্যাটিকান সিটি। এর আয়তন মাত্র ০.৪৪ বর্গ কি.মি.। এটি ইতালির রোম শহরের মধ্যে অবস্থিত একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। একে পবিত্র দেশ হিসেবেও জানা হয়। কারন দেশটি রোমান ক্যাথলিক গীর্জার বিশ্ব সদর দফতর হিসেবে কাজ করে। পোপ এই দেশের রাষ্ট্রনেতা। এখানে সবচেয়ে বড় গীর্জা অবস্থিত, নাম সেন্ট পিটার্স ব্যাসিলিকা (St. Peter’s Basilica)। দেশটিতে ১ টি মহাকাশ অবজারভেটরি এবং লাইব্রেরি ভ্যাটিকানা নামে লাইব্রেরি আছে। ভ্যাটিকান সিটির প্রধান আয়ের উৎস অনুদান যা আসে রোমান ক্যাথলিক ধর্মের বিলিয়নেরও বেশি অনুসারীদের থেকে। তবে আয়ের অন্যান্য উৎস হলো স্ট্যাম্প বিক্রি, টুরিস্ট এবং যাদুঘরের ভর্তি ফি।

পোস্টটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। পোস্টটি আপনাদের ভালো লাগলে কমেন্ট এবং শেয়ার করতে কার্পণ্য করবেন না। আপনাদের কমেন্ট এবং শেয়ার আমাদেরকে আরো বেশি লিখতে অনুপ্রেরণা যোগায়?।



error: