টপ ৫: জার্মানির সেরা ৫ বিশ্ববিদ্যালয় [QS Rankings – 2020]

বিশ্বের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে লেখাপড়া করার স্বপ্ন কে না দেখে? অনেকে হয়তো তাদের এই স্বপ্ন বাস্তবায়নও করতে পারে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে লেখাপড়া করার জন্য দেশের বাইরে যেতে হয়। তবে এই ক্ষেত্রে আমরা অনেকেই সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগে থাকি। কারণ, বিষয়টি আমাদের জন্য যথেষ্ট নতুন এবং সেরকম দক্ষ মেন্টরও পাই না, যারা আমাদেরকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবেন।

দেশের বাইরে পড়তে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রথম দিকেই আসে বিশ্ববিদ্যালয় নির্বাচন করা। আর বিশ্ববিদ্যালয় বাছাই করার এই ধাপে আপনাকে কিছুটা সাহায্য করার জন্যই আমাদের এই সেরা ৫ বিশ্ববিদ্যালয়ের লিস্ট। আজকের পর্বে থাকছে জার্মানির সেরা ৫ বিশ্ববিদ্যালয় গুলো সম্পর্কে।

জার্মানির সেরা ৫ বিশ্ববিদ্যালয়

Technische Universität München

টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ
টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ
QS Global World Ranking: 55
Status: Public
Students: 39,759

টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ (Technical University of Munich): কিউএস র‍্যাঙ্কিং এ জার্মানির সবচেয়ে সেরা বিশ্ববিদ্যালয় হল টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ। আর সার্বিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়টি গত বছরের তুলনায় ৬ ধাপ এগিয়ে ৫৫তম অবস্থানে আছে। ১৮৬৮ সালে প্রাকৃতিক বিজ্ঞান শিক্ষার কেন্দ্র হিসেবে জার্মানির ব্যাভারিয়া অঞ্চলে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এখনো পর্যন্ত ১৬ জন নোবেল বিজয়ী অধ্যয়ন করেছেন, শিক্ষকতা করেছে কিংবা গবেষণা করেছেন।

উল্লেখযোগ্য কয়েকজন: হেইনরিখ অটো ভাইল্যান্ড (রসায়নে নোবেল বিজয়ী, ১৯২৭), হ্যান্স ফিশার (রসায়নে নোবেল বিজয়ী, ১৯৩০), ওলফগাং কেটার্ল (পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী, ২০০১), গেরহার্ড আর্টেল (রসায়নে নোবেল বিজয়ী, ২০০৭), বার্নার্ড লুকাস ফেরিঙ্গা (রসায়নে নোবেল বিজয়ী, ২০১৬), জোয়াকিম ফ্রাঙ্ক (রসায়নে নোবেল বিজয়ী, ২০১৭) প্রমুখ।

Ludwig-Maximilians – Universität München

লুডভিক ম্যাক্সিমিলিয়ান ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ
লুডভিক ম্যাক্সিমিলিয়ান ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ
QS Global World Ranking: 63
Status: Public
Students: 35,041

লুডভিক ম্যাক্সিমিলিয়ান ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ (Ludwig Maximilian University of Munich): জার্মানির সবচেয়ে বিখ্যাত এই বিশ্ববিদ্যালয়টি বর্তমানে জার্মানিতে ২য় স্থানে আছে। আর বিশ্ব র‌্যাংকি এ অবস্থান ৬৩তম। ১৪৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়টির অবস্থান ব্যাভারিয়া অঞ্চলের প্রাণকেন্দ্র মিউনিখে। বিশ্ববিদ্যালয়টি জার্মান ভাষার পাশাপাশি ইংরেজি ভাষায়ও অনেক কোর্স অফার করে থাকে। এখনো পর্যন্ত ৪২ জন নোবেল বিজয়ী কোন না কোন ভাবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সংযুক্ত ছিল।

উল্লেখযোগ্য কয়েকজন: পোপ ষোড়শ বেনেডিক্ট, ভিলহেল্ম কনরাড র‌ন্টগেন (পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী, ১৯০১), থিওডোর ওলফগ্যাং হ্যানশ (পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী, ২০০৫), টমাস মান (নোবেল-বিজয়ী ঔপন্যাসিক), ভের্নার কার্ল হাইজেনবের্গ (পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী, ১৯৩২), স্যার মুহাম্মদ ইকবাল (দার্শনিক, ফার্সি ও উর্দু কবি), কনরাড আডেনোওয়ার (প্রাক্তন জার্মান চ্যান্সেলর), ভালদেস আদামকুস (প্রাক্তন লিথুয়ানিয়ার রাষ্টপতি) প্রমুখ।

Ruprecht-Karls-Universität Heidelberg

রুপ্রেখট ইউনিভার্সিটি অব হাইডেলবার্গ
রুপ্রেখট ইউনিভার্সিটি অব হাইডেলবার্গ
QS Global World Ranking: 66
Status: Public
Students: 20,020

রুপ্রেখট ইউনিভার্সিটি অব হাইডেলবার্গ (Ruprecht Karl University of Heidelberg): ইউনিভার্সিটি অব হাইডেলবার্গ প্রতিষ্ঠিত হয় ১৩৮৬ সালে। এটিই জার্মানির সবচেয়ে প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। অধিকাংশ কোর্স জার্মান ভাষায় হলেও ইংরেজি ভাষারও বেশ কিছু কোর্স রয়েছে। স্পেস সাইন্স, নিউরো-সাইন্স এবং ফিজিক্সের জন্য ইউনিভার্সিটি অব হাইডেলবার্গ খুব জনপ্রিয়। গত বছরের তুলনায় ২ ধাপ পিছিয়ে বিশ্ব র‌্যাংকি এ বিশ্ববিদ্যালয়টি বর্তমানে ৬৬তম অবস্থানে আছে।

উল্লেখযোগ্য কয়েকজন: দিমিত্রি মেন্ডেলিফ (রসায়নবিদ, আধুনিক পর্যায় সারণির জনক), আলফ্রেড ওয়েগনার (ভূ-তত্ত্ববিদ, আবহাওয়াবিদ ও মেরু বিষয়ক গবেষক), গেয়র্গ ভিলহেল্ম ফ্রিডরিখ হেগেল (দার্শনিক, মহাদেশীয় দর্শন ও মার্কসবাদের গুরুত্বপূর্ণ অগ্রদূত), মাক্স ভেবার (সমাজবিজ্ঞানী, দার্শনিক ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানী), আর্নল্ড টোয়েনবি (ইতিহাসবিদ) প্রমুখ।

Humboldt-Universität zu Berlin

হামবোল্ট ইউনিভার্সিটি অব বার্লিন
হামবোল্ট ইউনিভার্সিটি অব বার্লিন
QS Global World Ranking: =120
Status: Public
Students: 33,681

হামবোল্ট ইউনিভার্সিটি অব বার্লিন (Humboldt University of Berlin): দার্শনিক কার্ল মার্ক্সের স্মৃতি বিজড়িত এই হামবোল্ট ইউনিভার্সিটি। বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮১০ সালে। বিশ্ব র‌্যাংকিং এ বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টির অবস্থান ১২০তম। ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়টির সুখ্যাতি রয়েছে। এছাড়াও নিউরো-সাইন্স এবং ইমিউনোলোজি বিভাগেরও বেশ নামডাক আছে।এখনো পর্যন্ত ৫৫ জন নোবেল বিজয়ী কোন না কোন ভাবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সংযুক্ত ছিল।

উল্লেখযোগ্য কয়েকজন: অটো ফন বিসমার্ক (জার্মান সাম্রাজ্যের স্থপতি ও প্রথম চ্যান্সেলর), মাক্স প্লাংক (পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী, ১৯১৮), কার্ল মার্ক্স (দার্শনিক, অর্থনীতিবিদ, ইতিহাসবেত্তা, সমাজ বিজ্ঞানী, সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবী), আলবার্ট আইনস্টাইন (পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী – ১৯২১, আপেক্ষিকতার তত্ত্ব এবং ভর-শক্তি সমতুল্যতার সূত্রের আবিষ্কারক), ভের্নার কার্ল হাইজেনবের্গ (তাত্ত্বিক পদার্থবিদ এবং কোয়ান্টাম বলবিদ্যার জনক) প্রমুখ।

Karlsruher Institut für Technologie – KIT

কার্লশ্রুহ ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলোজি
কার্লশ্রুহ ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলোজি
QS Global World Ranking: 124
Status: Public
Students: 24,458

কার্লশ্রুহ ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলোজি (Karlsruhe Institute of Technology): ১৮২৫ সালে প্রতিষ্ঠিত এই কার্লশ্রুহ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কিউএস র‍্যাঙ্কিং এর ভিত্তিতে জার্মানিতে ৫ম এবং সাড়া বিশ্বে ১২৪ তম। জার্মানি এবং সমগ্র ইউরোপের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয় হল এই কেয়াইটি।

উল্লেখযোগ্য কয়েকজন: জোহান জ্যাকব বামার (গণিতবিদ এবং গাণিতিক পদার্থবিজ্ঞানী), কার্ল বেঞ্জ (গ্যাসোলিন চালিত মোটরগাড়ির উদ্ভাবক এবং মার্সেডিজ-বেঞ্জ এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা), লাভোস্লাভ রুৎজিচ্‌কা (রসায়নে নোবেল বিজয়ী, ১৯৩৯), পিটার স্যান্ডার্স, আলবার্ট স্পিকার (আডলফ হিটলারের প্রধান স্থপতি) প্রমুখ।

সোর্স: Top Universities

data-matched-content-rows-num="2" data-matched-content-columns-num="2"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

8 Shares
Share via
Copy link