অ্যাপল পার্ক: স্টিভ জবস তথা অ্যাপলের স্বপ্নের হেড অফিস

 

অ্যাপল’ মানেই আমাদের কাছে বিশেষ কিছু। তা সে আদম-হাওয়া’র কাহিনী, নিউটনের মাথায় গাছ থেকে হেলে পড়া বা স্টিভ জবসের ‘অ্যাপল’ই হোক! তবে প্রযুক্তিজগতে অনেকের কাছেই স্টিভ জবসের অ্যাপল (Apple) থেকে আসা যেকোন খবরই রোমাঞ্চকর। জবস হয়ত আজ আর নেই আমাদের মাঝে,কিন্তু তাঁর অসাধারন চিন্তা শক্তি আর কল্পনাকে বাস্তবে এনে দেবার প্রতিষ্ঠান ‘অ্যাপল’কে রেখে গেছে আমাদের মাঝে। তাই প্রতি বছরই আমাদের চোখ থাকে নতুন কি আসছে অ্যাপল থেকে। আইফোন (iPhone), ম্যাক ল্যাপটপ (Mac) কিংবা আইপড (iPod) ছাড়িয়ে এবার সবার মনোযোগ কেড়ে নিয়েছে ‘অ্যাপল পার্ক’ (Apple Park)। এই হচ্ছে সেই পার্ক সেখানে অ্যাপল নিয়ে স্টিভ জবস তাঁর সব স্বপ্ন বুনতে চেয়েছিলেন।

স্টিভ জবসের স্বপ্নের হেড অফিস – অ্যাপল পার্ক

স্টিভ জবসের স্বপ্নের হেড অফিস - অ্যাপল পার্ক

স্টিভ জবসের স্বপ্নের হেড অফিস – অ্যাপল পার্ক

২০১৭ সালের এপ্রিল থেকে অ্যাপল তার পুরাতন কার্যালয় ছেড়ে নতুন এই ‘অ্যাপল পার্ক’ কার্যালয়ে নিজেদের নিয়ে যেতে শুরু করেছে। তারা আশা করছেন, আগামী এক বছরের মাঝেই এই পার্ক থেকে তাদের সব কিছুর পরিচালনা শুরু করতে পারবেন। নতুন এই কার্যালয়কে তারা বলছেন, ‘সৃজনশীলতা ও পারস্পারিক সহযোগিতা কেন্দ্র’। স্টিভ জবসের ইচ্ছানুসারে, এই পার্কের নকশা করা হয়েছে স্পেসক্র্যাফটের মত করে। এখানকার একটি থিয়েটারের নামকরণ করা হয়েছে তাঁর সম্মানে। বর্তমান প্রধান নির্বাহী টিম কুক বলেছেন।“ অ্যাপল নিয়ে জবসের সৃজনশীলতা তাঁর সময়কে ছাপিয়ে আমাদের সময়ে এসে পৌঁছেছে।”

অ্যাপল পার্কে ব্যবহৃত হবে নবায়নযোগ্য জ্বালানী শক্তি

অ্যাপল পার্কে ব্যবহৃত হবে নবায়নযোগ্য জ্বালানী শক্তি

১৭৫ একর আয়তনের এই কার্যালয়ের মূল ভবনটি গোলাকার। এটি বিশ্বের বৃহত্তম বাঁকানো কাচের কাঠামো বলে প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন। পুরো ভবনে ব্যবহৃত হবে নবায়নযোগ্য জ্বালানী শক্তি। অ্যাপলের এই কার্যালয়কে কর্মকর্তারা বলছেন ক্যাম্পাস নামেও। অ্যাপলের প্রধান নকশাবিদ জনি আইভ বলেছেন, ‘আমরা যেভাবে আমাদের পণ্য তৈরিতে নকশা ও এর বৈশিষ্ট্যে কি হবে সেটা নিয়ে উৎসাহী থাকি; আমাদের এই নতুন ক্যাম্পাস তৈরিতেও একই রকম নকশা, প্রকৌশল সৃজনশীলতার বিষয়টি মাথায় রাখা হয়েছিল।’

আরো পড়ুন:  আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা: যন্ত্রের মানুষ হবার শিক্ষা

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আইএএনএস বলেছে, এই ক্যাম্পাসে দরজা খোলা বা বন্ধ করার জন্য ব্যবহার হবে একটি নতুন ধরনের ডিভাইস। মডেল ‘এ-১৮৪৪’ নামের এ ডিভাইসটিতে এনএফসি ও ব্লুটুথ সংযোগ থাকছে। এতে শক্তি খরচের মাত্রা কমে যাবে। অবশ্য দরজা খুলতে ব্যবহারকারীকে অবশ্যই অ্যাপলের দেওয়া পরিচয়পত্রই ব্যবহার করতে হবে।

অ্যাপল ক্যাম্পাস

অ্যাপল ক্যাম্পাস

অ্যাপল জানিয়েছে, এই ক্যাম্পাস বানাতে লেগেছে প্রায় ৫০০ কোটি মার্কিন ডলার। এখনো এর নির্মাণ পুরোপুরি শেষ হয়নি বলে জানিয়েছেন এর নির্মাণ পরিচালক। নির্মাণে নির্ধারিত থেকে কিছু সময় বেশি লেগেছে বলেও তিনি জানান। কারন হিসেবে বলেন, দরজার হাতলের নকশা করতেই তাদের দের বছরের বেশি সময় লেগেছে! জবসের স্বপ্ন পূরণে তারা কোন আপোষ করতে চাননি।

অ্যাপল পার্কের সম্পূর্ন ভিউ

অ্যাপল পার্কের সম্পূর্ন ভিউ

সাম্প্রতিক সময়ে অ্যাপল পরিবেশ নিয়ে বেশ কাজ করছে। নবায়নযোগ্য শক্তি ব্যবহার ছাড়াও তারা এই ক্যাম্পাসে ৪৬৯ ধরণের প্রায় ৯ হাজার গাছ লাগাচ্ছেন বলে স্থপতিরা জানিয়েছেন। এই ক্যাম্পাস এমনভাবে নকশা করা হয়েছে যে, বছরের প্রায় ৯ মাস এখানে কোন ধরণের শীতাতপ যন্ত্র ব্যবহার করার প্রয়োজন হবে না, থাকবে বছরজুরে প্রচুর প্রাকৃতিক আলোতে অফিস করবার সুবিধা। ক্যাম্পাসের ১৭ হাজার মেগাওয়াটের রুফটপ সোলার প্যানেল এখনই বিশ্বের সর্ববৃহৎ সোলার এনার্জি ইনস্টলেশনের তকমা পেয়েছে। মূল ভবনটির আয়তন প্রায় ৫ মিলিয়ন স্কয়ার ফিট।

জবসের স্ত্রী লরিন পাওয়েল এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘ক্যালিফোর্নিয়ার ভূপ্রকৃতি বৈশিষ্ট্য, আলোর ধরন আর প্রাকৃতিক বিশালতা থেকে স্টিভ জবস জীবনে কাজের উদ্যম ও অনুপ্রেরণা খুঁজে পেয়েছিলেন। তাঁর চিন্তার প্রিয় জায়গা ছিল এই ক্যালিফোর্নিয়া। অ্যাপল পার্কের নকশায় তাঁর সেই উদ্যমকে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে।’

আরো পড়ুন:  ভার্চুয়াল রিয়েলিটি: কল্পনাশক্তির ত্রিমাত্রিক ও ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য বাস্তবায়ন

১৯৫৫ সালে কলেজ থেকে ঝরে পড়া দুই বন্ধুর প্রতিষ্ঠান অ্যাপল সে থেকেই প্রযুক্তিজগতে এক বিশ্বয়ের নাম। অ্যাপল নিশ্চিতভাবে কিছু না জানালেও, বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের কারনে বাজারে এই ক্যাম্পাসে ব্যবহৃত নানা উদ্ভাবনী প্রযুক্তি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। জবসের স্বপ্নের কারখানা নিয়ে এমন আলোচনা স্বাভাবিকই বটে।

লেখক: Abid Reza

data-matched-content-rows-num="2" data-matched-content-columns-num="2"

2 Responses

  1. Asraf khan says:

    Valo information

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *