টপ ৫: স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান

ইউরোপের দেশ স্পেন ফুটবল প্রেমিদের কাছে পরিচিত বার্সেলোনা – রিয়াল মাদ্রিদের দেশ হিসেবে। যদিওবা ফুটবলই স্পেনের পর্যটন শিল্পের অন্যতম প্রভাবক, তবে শুধুমাত্র ঘুরতে আসা পর্যটকও কম নয়। এসব পর্যটকদের কাছে স্পেন দেশটি আকর্ষণীয় এর সমৃদ্ধ শিল্প সংস্কৃতি এবং ঐতিহাসিক বিভিন্ন স্থাপত্যের কারনে। বিশ্ববিখ্যাত স্থপতি অ্যান্টনি গাউদির বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থাপত্য এবং পশ্চিমা ইউরোপের ইসলামী নিদর্শনসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান পর্যটকদের প্রতিনিয়ত আকর্ষণ করে থাকে। তাই চলুন আজকে দেখে নেই, ফুটবলের দেশ স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান গুলো সম্পর্কে।

স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান

গুগেনহাইম মিউজিয়াম

গুগেনহাইম মিউজিয়াম

স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান গুলোর লিস্টে ৫ম স্থানে আছে গুগেনহেইম মিউজিয়াম (Guggenheim Museum)। এটি স্পেনের একটি আশ্চর্য্য নিদর্শন। এর অবস্থান অ্যাটলান্টিক মহাসাগরের তীরে পাহাড়বেষ্টিত উত্তর স্পেনের বিলবাও শহরে৷ গত শতাব্দীর ৯০-এর দশকে শহরটি ইউরোপের একটি পুরনো ও দুর্বল শহরে পরিণত হলে স্থানীয় অঞ্চলের পৌর সরকার শহর উন্নয়নের জন্য পর্যটন শিল্প উন্নয়নের পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে। আর সেই পরিকল্পনাতেই ইউরোপের শিল্পরসিকদের আকর্ষণ করার জন্য ১৯৯৭ সালে নেরভিয় নদীর তীরে গুগেনহেইম মিউজিয়াম প্রতিষ্ঠিত হয়।

গুগেনহেইম মিউজিয়ামের স্থাপত্য ডিজাইন বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন। এর আকার, কাঠামো ও এটি তৈরিতে ব্যবহৃত কাঁচামাল অসাধারণ বলে বিশ্বের অন্যতম সুন্দর মিউজিয়াম হিসেবে আখ্যায়িত। এর ডিজাইনার হলেন মার্কিন স্থাপত্য শিল্পী ফ্রান্ক গেরি (Frank Gehry)। প্রতি বছর দশ লক্ষাধিক পর্যটক এই গুগেনহাইম মিউজিয়াম দেখতে বিলবাও ভ্রমণে আসেন।  ফলে বাস্ক প্রদেশের পর্যটন আয় আগের চেয়ে প্রায় ৫ গুণ বেড়েছে। এই মিউজিয়াম শহরের অর্থনৈতিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটিয়েছে।

সান লরেঞ্জো দি এল এস্কোরিয়াল

সান লরেঞ্জো দি এল এস্কোরিয়াল

স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান গুলোর পরবর্তী স্থানে আছে সান লরেঞ্জো দি এল এস্কোরিয়াল (San Lorenzo de El Escorial)। এটি স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদ থেকে ৪৫ কিমি. উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত। এই রাজপ্রাসাদটি ব্যবহার করা হত স্পেনের তৎকালীন রাজাদের গ্রীষ্মকালীন প্রাসাদ হিসেবে। এর নির্মাণকাজ শুরু হয় ১৫৬৩ সালে। তখন এই নির্মাণ কাজের অংশ হিসেবে ছিল একটি মঠ, একটি গির্জা, রাজকীয় প্রাসাদ, সমাধিসৌধ, লাইব্রেরী এবং যাদুঘর। যা এখন রাজা দ্বিতীয় ফিলিপ এবং তার রাজত্বের আধিপত্যের স্মৃতিস্তম্ভ হিসাবে দারিয়ে আছে।

সান লরেঞ্জো দি এল এস্কোরিয়াল প্রাসাদটি দৈর্ঘ্যে ২০৭ মিটার এবং প্রস্থে ১৬১ মিটার৷ এটি রেনেসাঁস স্থাপত্য যুগের বৃহত্তম নিদর্শন৷ স্পেনীয়দের মতে, এই এল এস্কোরিয়াল বিশ্বের অষ্টম আশ্চর্য৷ এখানে স্পেনের অধিকাংশ রাজাদের মরদেহ রাখা রয়েছে। শ্বেতপাথরের ২৬টি কবর বিশিষ্ট একটি সমাধিগৃহে৷

কর্দোবা গির্জা মসজিদ (লা মেজকুইটা)

কর্দোবা গির্জা মসজিদ (লা মেজকুইটা)

এককালে পশ্চিমা বিশ্বের প্রধান মসজিদ হিসেবে পরিচত এই কর্দোবা গির্জা মসজিদ (Great Mosque of Córdoba, La Mezquita) বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মসজিদ এবং স্পেনে মুরিশ স্থাপত্যের শ্রেষ্ঠ কীর্তি। এই মসজিদটি স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান গুলো মধ্যে অন্যতম। এই মসজিদটি লা মেজকুইটা নামেও পরিচিত। এটি ৭৮৪ খ্রিষ্টাব্দে নির্মাণ করা হলেও ১,০০০ খ্রিষ্টাব্দে এটি এর বর্তমান গঠন পায়। আসলে চোখে না দেখলে একে বর্ণনায় বোঝানো খুবই মুশকিল। এর ধারেকাছে গেলেই পরিবেশটা বদলে যেতে থাকে। যারা গেছেন তাদের মতে, কর্দোবায় যাবেন কিন্তু লা মেজকুইটায় ভ্রমণ করবেন না, সেটা রীতিমতো অপরাধ।

যদিওবা ইতিহাসের বিবর্তনে পরবর্তীতে ১২৩৬ সালে একে গির্জায় রূপান্তরিত করা হয়, তবে এই গ্রেট কর্দোবা মসজিদটি গ্রানাডার আলহাম্বরার সাথে পশ্চিমা ইউরোপের ইসলামী শিল্প ও স্থাপত্যের সবচেয়ে চমৎকার দুটি উদাহরণ।

সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া

সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া

সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া (Sagrada Familia) স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান গুলোর মধ্যে অন্যতম। এটি আসলে একটি ক্যাথলিক ব্যাসিলিকা বা ক্যাথলিক গীর্জা। এর অবস্থান স্পেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর এবং কাতালোনিয়া অঙ্গরাজ্যের রাজধানী বার্সেলোনাতে। ফুটবলের আশীর্বাদে বার্সেলোনা নামটার সাথে কম বেশী পরিচিত হলেও লন্ডনের বিগ বেন (ঘড়ি), প্যারিসের আইফেল টাওয়ার, আমেরিকার স্ট্যাচু অব লিবার্টি কিংবা ভারতের তাজমহল এর মতো সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়াও বার্সেলোনা শহরের প্রতীক।

সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া গির্জাটির স্থপতি হলেন স্প্যানিশ-কাতালান আধুনিকতার হোতা অ্যান্টনি গাউদি। ১৮৮২ সালে ফ্রান্সিসকো পাওল ভিলারের অধীনে এই প্রকল্প শুরু হলেও ভিলারিয়ার কাজ শুরুর এক বছর যেতে না যেতেই তাকে কাজ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় এবং কাজে যুক্ত হন গাউদি। তিনিও এই প্রকল্প শেষ করে যেতে পারেন নি বটে কিন্তু এই শেষ না করাটাই যেন এই মন্দির বা ক্যাথাডালের সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে। গাউদির অসমাপ্ত এই গির্জাটি দেখে দর্শকদের চোখেমুখে বিস্ময় ফুটে ওঠে, এবং ভাবে কিভাবে এত সুন্দর ইমারত নির্মাণ সম্ভব ৷ ৩০ লাখ মানুষ প্রতি বছর ‘সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া’ চত্বরে আসেন এর রূপ সুধা পান করতে।

দ্য আলহাম্বরা ও জেনেরালাইফ

দ্য আলহাম্বরা ও জেনেরালাইফ

আপনি আলহাম্বরার যত ছবিই দেখেন না কেনো বা যত আর্টিকেলই পড়ুন না কেনো গ্রানাডা শহরের এই স্প্যানিশ নিদর্শন আলহাম্বরা (Alhambra) দেখার সময় আপনার মুখ একেবারে ‘হা’ হয়ে যাবে। এই নাসরিদ রাজবংশের রাজপ্রাসাদটি স্পেনের ইসলামী কালচারের শৈল্পিক নিদর্শন। আর এটি নির্মিত হয় ১৪ শতকে, যখন আল-আন্দালুস (আন্দালুসিয়া) ছিল মধ্য যুগে ইউরোপের সংস্কৃতি ও সভ্যতার প্রতিনিধি। আর এটিই স্পেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থান।

আলহাম্বরাতে রয়েছে বেশকিছু ভবন, টাওয়ার, দেয়াল, বাগান এবং একটি মসজিদ। কিন্তু এর অবিশ্বাস্যভাবে জটিল পাথর সজ্জা, সূক্ষ্ম তাৎপর্য, চমৎকার টালি-রেখাযুক্ত সিলিং, মসৃণ খিলান এবং নাসরিদ প্রাসাদের নিখুঁত আঙ্গিনা আপনার স্বপ্নকেও ঘিরে ফেলবে। এটি ১৯৮৪ সালে ইউনেস্কো দ্বারা বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে স্বীকৃতি পায়।

ফ্রান্সের আরো কিছু দর্শনীয় স্থান: কাসা মিলা, পালাসিও রিয়াল (রিয়ালের রাজপ্রাসাদ), প্রাদো অ্যান্ড প্যাসেও দেল আর্টেস, সেভিয়া ক্যাথেড্রাল, সান্তিয়াগো দি কম্পোস্তেলা ক্যাথেড্রাল, লা রাম্বলা ইত্যাদি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *