কেমন হবে যদি সূর্যে পানি ঢেলে দেই?

বিজ্ঞানীদের মতে অনেক অনেক বছর পর সূর্য নিঃশেষ হয়ে যাবে। তখন আমাদের এই পৃথিবীর কি হবে? আর যার উত্তর খুবই সোজা। পৃথিবীর মৃত্যু হবে এবং সেই মৃত্যু হবে মর্মান্তিক। ভয় পেলেন নাকি?! আসলে সৌভাগ্যবশত বা দুর্ভাগ্যবশত আমরা মানুষরা এসব কিছুই দেখব না। কারন এমন কিছু ঘটার বহু আগেই পৃথিবী থেকে মানুষের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যাবে। যেহেতু আমরা থাকব না, তাই দেখতেও পারব না কিভাবে কি হবে। কিন্তু আমরা তো এখনই সূর্যকে নিঃশেষিত করে দিতে পারি। কিভাবে? সূর্যের উপর বিপুল পরিমাণ পানি ঢেলে দিয়ে… কিন্তু সূর্যের উপর পানি ঢেলে দিলে কি সূর্য নিঃশেষিত হবে? নাকি ঘটবে অন্য কিছু। তবে সূর্যে পানি ঢালার আগে চলুন সূর্য সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেই।

সূর্য সম্পর্কে কিছু তথ্য

সূর্য সম্পর্কে কিছু তথ্য
সূর্য সম্পর্কে কিছু তথ্য

সূর্য হলো একটি নক্ষত্র। এটি আমাদের সৌরজগতের কেন্দ্র এবং পৃথিবীর সবচেয়ে নিকটতম তারা (নক্ষত্র)। এটি পৃথিবীর ব্যাসের প্রায় ১০৯ গুণ। এর প্রধান গাঠনিক উপাদান হাইড্রোজেন এবং হিলিয়াম। সূর্য পৃষ্ঠের তাপমাত্রা আনুমানিক ৫৭৭৮ কেলভিন বা ৫৫০৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সূর্য থেকে যে পরিমাণ আলো পৃথিবীতে আসে, তা একসাথে জড় করলে যে পরিমাণ শক্তি উৎপন্ন হবে, তার পরিমাণ হবে প্রায় ১৭০ ট্রিলিয়ন কিলোওয়াট। এবং পৃথিবীতে আসা এই একদিনের শক্তি পুরোপুরি ব্যবহার করলে তা দিয়েই হাজার বছর কাটিয়ে দিতে পারবে পৃথিবী।

কিন্তু সূর্য যে পরিমাণ শক্তি প্রতিদিন বিকীর্ণ করে তা পৃথিবীতে আসা এই শক্তির তুলনায় কিছই না। কেননা সূর্য প্রতিদিন পৃথিবীতে আসা শক্তির তুলনায় প্রায় ২ বিলিয়ন গুণ বেশি শক্তি বিকীর্ণ করে। কিন্তু কত বছর থাকবে সূর্যের এই শক্তি? আইনস্টাইনের E = mc^2 অনুযায়ী কোন কিছু শক্তি বিকিরণ করলে তার ভরের পরিমাণও কমেবে। আর সূর্য প্রতিনিয়ত নিউক্লীয় ফিউশন প্রক্রিয়ায় শক্তি উৎপাদন ও বিকিরণ করে চলেছে। ফলে তার ভরও ক্রমশঃ হ্রাস পাচ্ছে যা সেকেন্ডে প্রায় ৪ মিলিয়ন টন। সূর্যের ভর যদি পৃথিবীর সমান হতো তাহলে সূর্য টিকে থাকতো বড়জোর ৫০০০০ বছর। কিন্তু বাস্তবে সূর্যের ভর পৃথিবীর তুলনায় ৩৫০০০০ গুণ বেশি। তাই এক্ষেত্রে নিশ্চিন্তই থাকতে পারেন আপনি।

কেমন হবে যদি সূর্যে পানি ঢেলে দেই?

কেমন হবে যদি সূর্যে পানি ঢেলে দেই?
কেমন হবে যদি সূর্যে পানি ঢেলে দেই?

এখন আপনি জানেন সূর্যের ক্ষমতা সম্পর্কে। তাই চলুন এখন দেখে নেই কি হবে যদি সূর্যে পানি ঢেলে দেই। প্রথমেই যে সমস্যা তা হল কি দিয়ে পানি ঢালবো? এতো বড় পাত্র কোথায় পাবো? ধরে নেই কোন এক ভাবে আমরা সেই পাত্র জোগাড় করে ফেলেছি। আর কোন এক প্রযুক্তি আবিষ্কার করেছি যাতে সূর্যে পানি ঢালতে পারি। সবকিছু জোগাড় হয়ে গেছে। তো এই ঢেলে দিলাম পানি। কি হবে মনে হয়?

এর উত্তর পেতে আমরা সাহায্য নিতে পারি একজন জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানীর। এবং যেহেতু আগে কখন এমন কিছু হয়নি তাই এটা করতে হবে স্পেশাল সফ্টওয়্যার সিমুলেটরে। বাস্তবে আমারা কি দেখি? যখন কোন কিছু জ্বালানো হয় তখন কি প্রয়োজন হয়? জ্বালানি, বাতাশ এবং তাপ। আর যখন এতে আমরা পানি ঢালি তখন আগুন নিভে যায়। এক্ষেত্রে পানি জালানির উপর একটা প্রলেপ দিয়ে দেয় যাতে তা বাতাসের সংস্পর্শে না আসতে পারে। আর আশা করি সবাই এটা জানি যে, বাতাস ছাড়া আগুন জ্বলবে না। কিন্তু মহাকাশের ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম দেখা যায়। কেননা মহাকাশে তো কোন বাতাস নেই! আর তাই পানি দিয়ে আগুনও নিভানো যায় না আর তা আমরা যত পানিই দেই না কেন। বরং সূর্য সেই পানিকে ব্যবহার করবে তার জ্বালানি হিসেবে।



error: