টপ ৫: সবচেয়ে সেরা ৫টি অ্যানিমেশন মুভি

আমাদের দেশে অ্যানিমেশন মুভি বা কার্টুন বাচ্চাদের কাছে অনেক জনপ্রিয়। ইউরোপ, আমেরিকাতে অ্যানিমেশন মুভি গুলো সব বয়সের মানুষেরাই দেখে থাকে। যার তুলনায় আমাদের দেশে এর জনপ্রিয়তা তুলনামূলক কম বললেই চলে। আজকে আমরা সবচেয়ে সেরা ৫ অ্যানিমেশন মুভি নিয়ে আলোচনা করব। এই মুভি গুলো সবার অন্তত একবার হলেও দেখা উচিত।

সবচেয়ে সেরা ৫ অ্যানিমেশন মুভি

ওয়াল-ই

ওয়াল-ই
ওয়াল-ই

সবচেয়ে সেরা ৫ অ্যানিমেশন মুভির লিস্টে শুরুতেই আছে ওয়াল-ই (Wall-E)। এটি ২০০৮ সালে মুক্তি পাওয়া আমেরিকান কম্পিউটার-অ্যানিমেটেড সাইন্সফিকশন ও রোমান্টিক মুভি। পিক্সার অ্যানিমেশন স্টুডিও দ্বারা নির্মিত ও ওয়াল্ট ডিজনি পিকচার্স দ্বারা প্রকাশিত এই মুভিটি পরিচালনা করেছেন এন্ড্রু স্ট্যানটন। ছবিটিতে ওয়াল-ই নামের একটি ক্লিন মেশিন ভবিষৎ থেকে আসা মেয়ে রোবটের প্রেমে পড়ে যায়। বিজ্ঞানের কল্পিত টাইম মেশিনের সাথে যন্ত্রের এক অভূতপূর্ব সম্পর্ক তৈরি করে পুরো মুভিটি সাজানো হয়েছে। যা মানুষকে মনের টাইম মেশিনে করে ভবিষৎ পৃথিবীর কল্পায় ডুব দেওয়ায়। মুক্তির পর মুভিটি বক্স অফিস কাপিয়েছে এবং বিশ্বে ৫৩৩.৩ মিলিয়ন ইউএস ডলার আয় করেছে।

হাও টু ট্রেইন ইউর ড্রাগন

হাও টু ট্রেইন ইউর ড্রাগন
হাও টু ট্রেইন ইউর ড্রাগন

সবচেয়ে সেরা ৫ অ্যানিমেশন মুভির লিস্টে পরবর্তী স্থানে আছে হাও টু ট্রেইন ইউর ড্রাগন (How To Train Your Dragon)। এটি ২০১০ সালে আমেরিকান কম্পিউটার অ্যানিমেটেড দ্বারা নির্মিত থ্রি ডি অ্যানিমেশন ফ্যান্টাসি ও একশন মুভি। ক্রিস সেন্ডার্স ও ড্যন ড্যব্লিওইস ছবিটির পরিচালনা করেন। বক্স অফিসে ছবিটি ৪৯৫.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে।ছবিটির বাজেট ছিল ১৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। মুভিটির গল্প সাজানো হয়েছে এক ভাইকিং কিশোর ও একটি ড্রাগনকে নিয়ে। ভাইকিং কিশোরটি একসময় একটি ড্রাগন বন্ধী করতে সক্ষম হলে এটা কে হত্যা না করে নিজের বন্ধুর মতো বানিয়ে ফেলার দীর্ঘ প্রচেষ্টার গল্প নিয়েই এই মুভিটি তৈরি করা হয়েছে। প্রথম পর্ব ব্যপক জনপ্রিয়তা লাভ করার পর এর দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্বও বক্স অফিসে ব্যাপক লাভের মুখ দেখে।

স্পিরিটড এওয়ে

স্পিরিটড এওয়ে
স্পিরিটড এওয়ে

স্পিরিটড এওয়ে (Spirited Away) ২০০১ সালে মুক্তি পাওয়া জাপানী অ্যানিমেটেড ফ্যান্টাসি ফিল্ম। মুভিটির লেখক ও পরিচালক হায়ও মিয়েয্যকি। ১৫-১৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজেটের এই মুভিটি বক্স অফিসে ২৮৯.১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে। ছবিটির কাহিনী ১০ বছরের এক মেয়ে কে নিয়ে। ১২৫ মিনিটের এই মুভিটিতে দেখা যায় মেয়েটি পিশাচ ও প্রেতের সাথে বসবাস করতে। তার সাথে ঘটে যাওয়া অদ্ভুত অদ্ভুত ঘটনার সম্মুখীন হতে। ছবিটির মুক্তির পর পরই জাপান ও বিশ্বের অ্যানিমেশন মুভি লাভারদের কাছে জনপ্রিয় হতে থাকে।

দ্য ইনক্রেডিবলস

দ্য ইনক্রেডিবলস
দ্য ইনক্রেডিবলস

সবচেয়ে সেরা ৫ অ্যানিমেশন মুভির লিস্টে পরবর্তী স্থানে আছে দ্য ইনক্রেডিবলস (The Incredibles)। এটি ২০০৪ সালে মুক্তি পাওয়া আমেরিকান কম্পিউটার-অ্যনিমেটেড সুপারহিরো ফিল্ম। ছবিটির পরিচালনা করেছেন ব্র্যাড বার্ড। পিক্সার অ্যানিমেশন স্টুডিও দ্বারা নির্মিত এবং ওয়াল্ট ডিজনি পিকচার্স দ্বারা প্রকাশিত এই মুভিটিতে ক্রেইগ টি নেলসন, হোলি হান্টার, সারাহ ভওয়েল, স্পেন্সার ফক্স, জেসন লি, স্যামুয়েল এল এর জ্যাকসন ও এলিজাবেথ পানা এনিমেশনে কন্ঠ দান করেন।

এই মুভিটিতে সুপারহিরোদের একটি পরিবার অনুসরণ করে যারা তাদের ক্ষমতা লুকাতে একটি শান্ত উপবনে জীবন বাঁচাতে বাধ্য হয়। সুপারম্যানদের সাহায্য করার জন্য পুরো পরিবারকে একটি প্রাক্তন ফ্যানের সাথে লড়াইয়ে সাহায্য করার জন্য তার সুপারিশকারীকে হত্যাকারী রোবোটের সাথে মিশিয়ে ফেলার পরিকল্পনা করে।২০০৪ সালে লন্ডন ফিল্ম ফেস্টিবেলে ছবিটি মুক্তি পায়। পরবর্তীতে আমেরিকায় মুক্তি পেলে বক্স অফিসে ব্যপক হিট হয় এবং বিশ্বব্যপি ৬৩৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে।

দ্য ট্রিপলেটস অব বেলেভিল

দ্য ট্রিপলেটস অব বেলেভিল
দ্য ট্রিপলেটস অব বেলেভিল

২০০৩ সালে মুক্তি পাওয়া যৌথ অ্যানিমেটেড কমেডি মুভি দ্য ট্রিপলেটস অব বেলেভিল (The Triplets of Belleville) পুরো বিশ্বের কাছেই জনপ্রিয় হয়েছে। সিলভাইন চোমট লিখিত ও পরিচালিত তার প্রথম অ্যানিমেশন মুভি এটি। ইংল্যান্ডে মুক্তি পাওয়ার প্রথম দিকে ছবিটি যৌথ প্রযেজিত দেশ ফ্রান্স, ইংল্যান্ড, বেলজিয়াম, কানাডাতে জনপ্রিয় হতে থাকে। ফরাসি, ইংরেজি ও পর্তুগিজ ভাষায় মুক্তি পাওয়া এই মুভিটি ৯.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজেটে তৈরি। যা বক্স অফিসে ১৪.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে।

1 Response

  1. Munna says:

    Tangled মুভি ছাড়া অ্যানিমেশন মুভি কল্পনাও করা যায় না। আর সেই Tangled এর নাম নেই সেরা ৫ এ! 😂😂😂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

23 Shares
Share via
Copy link