টপ ৫: সবচেয়ে বেশি ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার

ভিটামিন এ আমাদের শরীরের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, চোখের দৃষ্টি, শরীরের বৃদ্ধি, ত্বকের স্বাস্থ্য, প্রজনন এবং অন্ত্র, মূত্রাশয় ও অন্যান্য পৃষ্ঠের টিস্যুগুলি উন্নত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। শরীরের ভিটামিন এ এর প্রয়োজনীতা খুব বেশি না হলেও, যে-টুকু প্রয়োজন সে-টুকু না হলে শরীর তার স্বাভাবিক গতি হারিয়ে ফেলে, শরীরে বাসা বাঁধে নানা রকম রোগ ব্যাধি যা আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাপনকে ব্যাহত করে।

তবে প্রতিদিন আমাদের যতটুকু ভিটামিন এ প্রয়োজন তা আমরা দৈনন্দিন খাবার থেকেই পেতে পারি যদি আমরা যথেষ্ট পরিমাণ ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার খাই। এতে করে আমরা বিভিন্ন ধরণের চর্ম রোগ, চোখের শুস্কতা, অকাল অন্ধত্ব, চুল পড়া সহ বিভিন্ন রোগ ব্যাধি প্রতিরোধ করতে পারবো। তাই চলুন দেখে ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার গুলো কি কি:

ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার

গাজর

গাজর
গাজর

ভিটামিন এ সবেচেয়ে বেশি পাওয়া যায় গাজরে। প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁচা গাজরে প্রায় ৮৩৫ মাইক্রোগ্রাম পরিমাণ ভিটামিন এ রয়েছে। যা একজন মানুষের দৈনিক ভিটামিন এ চাহিদার ১০৪% [সোর্স]। অর্থাৎ প্রতিদিন শুধুমাত্র ১০০ গ্রাম গাজর খেলেই দৈনিক ভিটামিন এ এর চাহিদা মিটে যাবে।

গাজর খাওয়ার নানা রকম উপায় থাকলেও, আমাদের দেশে সালাদ হিসেবেই গাজর খাওয়া হয় সবচেয়ে বেশি। তবে অনেক গৃহিনী গাজরকে অন্যান্য সবজির সাথে রান্না করেও খেয়ে থাকেন। আবার, অনেকে গাজরের হালুয়া তৈরি করেন যা বড়-ছোট সবার কাছে দারুণ মুখরোচক।

কলিজা

কলিজা
কলিজা

ভিটামিন এ এর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস হল কলিজা। কলিজাতে ভিটামিন এ এর পরিমাণ আসলে খুবই বেশি। কারণ, মানুষের মতো অন্যান্য প্রাণীও লিভারে ভিটামিন এ সংরক্ষণ করে। আর তাই প্রতি ১০০ গ্রাম কলিজাতে প্রায় ৬৫০০ মাইক্রোগ্রাম পরিমাণ ভিটামিন এ রয়েছে। যা একজন মানুষের দৈনিক ভিটামিন এ চাহিদার ৮১৩% [সোর্স]। অর্থাৎ প্রতিদিন শুধুমাত্র ১০০ গ্রাম কলিজা খেলেই দৈনিক ভিটামিন এ চাহিদার ৮ গুন ভিটামিন এ পাওয়া যাবে।

এক্ষেত্রে গরু এবং ভেড়ার কলিজাতে সবচেয়ে বেশি ভিটামিন এ পাওয়া যায়। ভিটামিন এ ছাড়াও এটি আয়রনেরও গুরুত্বপূর্ণ একটি উৎস।

কড লিভার অয়েল

কড লিভার অয়েল
কড লিভার অয়েল

কড মাছের লিভার বা যকৃত থেকে তৈরি এই তেল মূলত ওষুধ হিসেবেই গণ্য করা হয়। বাজারে এই তেল ক্যাপসুল হিসেবে পাওয়া যায়। এই ক্যাপসুল মূলত ভিটামিন এ দিয়ে ভরপুর।

প্রতি ১৩.৬ গ্রাম বা ১৪.৮ মিলি. কড লিভার অয়েলে প্রায় ৪,০৮০ মাইক্রোগ্রাম পরিমাণ ভিটামিন এ রয়েছে। যা একজন মানুষের দৈনিক ভিটামিন এ চাহিদার প্রায় ১০০০% [সোর্স]। এছাড়া কড লিভার অয়েল ভিটামিন ডি এরও একটি ভাল উৎস, কেননা প্রতি ১৩.৬ গ্রাম বা ১৪.৮ মিলি. কড লিভার অয়েলে দৈনিক ভিটামিন ডি চাহিদার প্রায় ৩৪০% রয়েছে।

মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলু
মিষ্টি আলু

উদ্ভিজ্জ খাবারের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভিটামিন এ পাওয়া যায় মিষ্টি আলুতে। প্রতি ১০০ গ্রাম রান্না করা মিষ্টি আলুতে প্রায় ৯৬১ মাইক্রোগ্রাম পরিমাণ ভিটামিন এ রয়েছে। যা একজন মানুষের দৈনিক ভিটামিন এ চাহিদার ১২০% [সোর্স]।

মিষ্টি আলুতে ক্যালোরি কম থাকে, ফাইবারের পরিমাণ বেশি থাকে এবং ফ্যাট মুক্ত। তাই মিষ্টি আলু রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে। এছাড়া মিষ্টি আলু ভিটামিন বি-৬, ভিটামিন সি এবং পটাসিয়ামেরও খুব ভাল উৎস।

পালং শাক

পালং শাক
পালং শাক

অন্যান্য সবুজ পাতাযুক্ত শাকসবজির মতো পালং শাকেও প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি রয়েছে। এতে ভিটামিন এ এর পরিমাণও বেশি। প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁচা পালং শাকে প্রায় ৪৬৯ মাইক্রোগ্রাম পরিমাণ ভিটামিন এ রয়েছে। যা একজন মানুষের দৈনিক ভিটামিন এ চাহিদার ১২০% [সোর্স]।

পালং শাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ ছাড়াও রয়েছে আয়রন (দৈনিক চাহিদার ১৭%) এবং ম্যাগনেসিয়াম (দৈনিক চাহিদার ২০%)।

এসব খাবার ছাড়াও মিষ্টি কুমড়া, মাখন, ডিম, আম, পেঁপে, টমেটো, দুধ, মটর ইত্যাদি খাবারে যথেষ্ট ভিটামিন এ রয়েছে।

data-matched-content-rows-num="2" data-matched-content-columns-num="2"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 Shares
Share via
Copy link